১৫ কোটি মানুষের তথ্য ফেসঅ্যাপে

১৫ কোটি মানুষের তথ্য ফেসঅ্যাপে

যুক্তরাষ্ট্র থেকে প্রকাশিত জনপ্রিয় ম্যাগাজিন ফোর্বসে উঠে এসেছে বর্তমান সময়ের আলোচিত সমালোচিত অ্যাপ ‌‘ফেসঅ্যাপ’ নিয়ে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য। ফোর্বস জানিয়েছে, ফেসঅ্যাপ ১৫০ মিলিয়ন মানুষের নাম ও ছবিসহ ব্যক্তিগত তথ্য নিয়ে ফেলেছে।

ফোর্বসের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, মানুষ মনে করছে অ্যাপটি এমনিতেই ব্যবহার করা যাচ্ছে। কিন্তু এটি ব্যবহার করতে যে তার নাম, ছবিসহ তথ্য দিতে হচ্ছে সেদিকে কেউ নজরই দেয়নি।

গত কয়েক দিন ধরে সোশ্যাল মিডিয়ায় অনেকেই নিজের বেশি বয়সের ছবি পোস্ট করছেন। ফেসঅ্যাপ নামে একটি অ্যাপ ব্যবহার করে এই ধরনের ছবি তৈরী করা যাচ্ছে। আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স ব্যবহার করে এই কাজ করছে জনপ্রিয় মোবাইল অ্যাপটি।

আর্টিফিশিয়াল ইন্টিলিজেন্স ব্যবহার করে নিখুঁত ভাবে যে কোন মানুষের ছবিকে এডিট করে দিচ্ছে ফেসঅ্যাপ। সেই কারনেই আবার জনপ্রিয়তার শীর্ষে পৌঁছেছে মোবাইল অ্যাপটি। অ্যান্ড্রয়েড ও আইওএস ডিভাইস থেকে ব্যবহার করা যায় এই অ্যাপ। ছবিতে বয়স কমানো অথবা বাড়ানো ছাড়াও এই অ্যাপ ব্যবহার করে চুল ও দাঁড়ির কায়দা বদল করা সম্ভব। স্মার্টফোন থেকে যে কোন ছবি নিজেদের সার্ভারে আপলোড করে এই ছবি এডিটিং এর কাজ করে ফেসঅ্যাপ।

অ্যাপ অ্যাপি জানিয়েছে, ১০০ মিলিয়নেরও বেশি লোক গুগল প্লে-স্টোর থেকে অ্যাপটি ডাউনলোড করেছেন। এবং ১২১ দেশ থেকে আইওএস থেকে এই অ্যাপ ডাউনলোড হয়েছে।


ফেসঅ্যাপ তথ্য অনুযারী, এই অ্যাপসটি নিয়ম মেনেই তৈরি করা। সিকিউরিটির নিয়ে এই অ্যাপে কোন ধরনের ঝামেলা নাই।

টুইটারে এলিজাবেথ পটস উইন্সটাইন নামে এক মহিলা ফেসঅ্যাপ ব্যবহারের শর্তাবলী পোস্ট করে একটি টুইট করেছেন। সেখানে যা লেখা রয়েছে তা পড়লে অনেকেই চমকে উঠবে। ফেসঅ্যাপ ব্যবহারের শর্তাবলীতে লেখা রয়েছে এই অ্যাপ ব্যবহার করলে আপনি কোম্পানির সার্ভারে আপলোড করা সব ছবি, নিজের নাম, আপনি কী পছন্দ করেন, আপনার গলা এই সব তথ্য বাণিজ্যিক কারনে ব্যবহারের আনুমতি দিচ্ছেন।

ইউরোপের একাধিক দেশে ব্যাক্তিগত তথ্য গ্রাহককে না জানিয়ে ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ বেআইনি। সেই ক্ষেত্রে ফেসঅ্যাপ যে দেশে ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ বেআইনি নয় সেই দেশে এই সেই তথ্য পাঠিয়ে অন্য দেশের নিয়ম দেখিয়ে তথ্য সংগ্রহ চালিয়ে যাবে ফেসঅ্যাপ।

রাশিয়ান প্রতিষ্ঠান ওয়্যারলেস ল্যাব ফেসঅ্যাপটি তৈরি করেছে। তিনি অবশ্য বলছে, এটি খুব ভয়ংকর নাও হতে পারে। কারণ তারা বলছে আরএনডি কাজ শেষের ৪৮ ঘণ্টা সময়ের মধ্যে তথ্যগুলো মুছে ফেলবে। কিন্তু যদি না মুছে তখন ব্যবহারকারীদের কিছুই করার থাকবে না। কারণ তারা বলেই দিচ্ছে, তথ্যগুলো যা খুশি তাই করতে পারে তারা।

এই দিকে ফোর্বস এর বরাদ দিয়ে ফোন এরিনার কোস্তাদিনভ বলেছেন, এইটি বিপজ্জনক কোন অ্যাপ নয়, আমেরিকার আমাজন সার্ভারে আপনার সদৃশতা থাকতে পারে। এর জন্য অ্যাপসটির লাইসেন্স রয়েছে। অ্যাপটি রাশিয়ান কোন প্রতিষ্ঠানের নয়। অ্যাপসটি মস্কোর বিলবোর্ডের মত। এতে এআই প্রযুক্তি ব্যবহার করা হয়েছে।

২০১৭ সালেও ভাইরাল হয়েছিল ফেসঅ্যাপ। তখনো এ অ্যাপ ঘিরে বিতর্ক তৈরি হয়েছিল। তাই মজা করার উদ্দেশ্যে ফেসঅ্যাপ ব্যবহার করে নিজের বিপদ ডেকে আনছেন না তো?

আরো দেখুন
মন্তব্য

Register

OR

Do you already have an account? Login

Login

OR

Don't you have an account yet? Register

Newsletter

Submit to our newsletter to receive exclusive stories delivered to you inbox!

keyboard_arrow_up